কর্ণফুলীতে ডেইরী ফার্মারস এসোসিয়েশনের আলোচনা সভায় বক্তারা
খামারীদের বাঁচাতে ৬০ টাকার নিচে দুধ নয়

আনোয়ারা (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি
দীর্ঘদিন যাবৎ খামারীরা গরুর খাঁটি দুধ সরবরাহ করে আসছে কর্ণফুলীসহ চট্টগ্রামের বিভিন্ন এলাকায়। করোনা পরিস্থিতির কারণে খামারীদের বেশ ক্ষতিও হয়েছে। করোনার প্রথম দিকে অর্থাৎ মার্চ-এপ্রিল মাসে দুধ বিক্রি না হওয়ায় আমাদের উৎপাদিত দুধ ফেলে দিতে হয়েছে। দুধ বিক্রি না হওয়ায় গরুর খাদ্য ও চিকিৎসা সংকটে পড়েছে অনেকে। অনেক খামারের দুগ্ধ উৎপাদন চার ভাগের এক ভাগে নেমে এসেছে। যা আর কোনভাবে পুনরুদ্ধার করা যাচ্ছে না। একই সাথে আপনাদের সুপ্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠান সমূহ প্রায় তিন মাস বন্ধ থাকায় আপনাদেরও অনেক ক্ষতি হয়েছে, যা আমরা অনুভব করি এবং আন্তরিক ভাবে সমবেদনা ও শ্রদ্ধা জানায় সকল খামারীদের। শনিবার (১৭ অক্টোবর) দুপুরে চট্টগ্রামের কর্ণফুলী উপজেলা ডেইরী ফার্মারস এসোসিয়েশনের উদ্দ্যোগে গো-খাদ্যের উচ্চ মূল্যসহ খামারের আনুষাঙ্গিক খরচ বেড়ে যাওয়ায় দুধের মূল্য নির্ধারণ বিষয়ক আলোচনা সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন।


উপজেলার চরলক্ষ্যা ইউনিয়নের স্থানীয় একটি কমিউনিটি সেন্টারে কর্ণফুলী উপজেলা ডেইরী ফার্মারস এসোসিয়েশনের সিনিয়র সহ-সভাপতি হারুন চৌধুরী নেভীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির ছিলেন চট্টগ্রাম জেলা ডেইরী ফার্মারস এসোসিয়েশনের সভাপতি ও বিভাগীয় ডেইরী ফার্মারস এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক নাজিম উদ্দীন হায়দার। সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ ফোরকানের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তা চট্টগ্রাম জেলা ডেইরী ফার্মারস এসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক মালিক মোহাম্মদ ওমর, বিশেষ অতিথি ছিলেন পশ্চিম পটিয়া ডেইরী এসোসিয়েশনের সাবেক সভাপতি নুরুল আবছার চৌধুরীসহ ডেইরী ফার্মারসের নেতৃবৃন্দরা।

প্রধান অতিথি নাজিম উদ্দিন হায়দার বলেন, বৈষিক আবহাওয়ার পরিবর্তনের কারণে চট্টগ্রাম জেলার বিভিন্ন খামারে ম্যাসটাইটিস, লাম্পি স্কিনসহ বিভিন্ন রোগ বৃদ্ধি পেয়েছে ও গাভী গর্ভধারনের হারও কমে যাচ্ছে। বর্তমানে চাল, ডাল, আলু ও পেঁয়াজসহ নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের দাম বেড়ে যাওয়ায় খামারীদের জীবন ধারণের খরচও অনেক বেড়ে গেছে। বর্তমান প্রতি লিটার উৎপাদন খরচ প্রায় ১৫ থেকে ১৮ টাকা বেড়ে যাওয়ায় খামার পরিচালনা করতে হিমশিম খাচ্ছে খামারীরা। খামারীদের অস্তিত্ব রক্ষার্থে প্রতি লিটার দুধের দাম ৬০ টাকা নিচে বিক্রয় না করারও আহবান জানান তিনি।

 

SHARE